ভ্যাকসিন আসার আগেই মারা যেতে পারে ২০ লাখ মানুষ, হু’র সতর্কতা 

করোনা ভ্যাকসিন আবিষ্কারের আগেই বিশ্বে মৃতের সংখ্যা ২০ লাখে পৌঁছাতে পারে বলে সতর্ক করলো বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা। পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে এখনই…

আপনার আঙুলের নখ যেসব অসুখের লক্ষণ নির্দেশ করে 

কখনো কী ভেবেছেন আপনার আঙুলের হলুদ এবং ক্ষয়ে যাওয়া নখগুলো হতে পারে কঠিন সব রোগের উপসর্গ? হ্যাঁ, অবশ্যই আপনার আঙুলের…

ডোপ টেস্টে পজেটিভ হওয়ায় চাকরি হারাচ্ছেন ২৬ পুলিশ সদস্য 

ডোপ টেস্টে পজেটিভ হওয়ায় ২৬ পুলিশ সদস্য বরখাস্তের প্রক্রিয়া শুরু হয়েছে বলে জানিয়েছেন ঢাকা মেট্রোপলিটন পুলিশ (ডিএমপি) কমিশনার মোহা. শফিকুল…

সব সংবাদ-তথ্য-ভিডিও

বিশ্ব

উহানের ল্যাবেই তৈরি করোনা ভাইরাস, দাবী চীনা বিজ্ঞানীর 

উহানের ল্যাবেই তৈরি করোনা ভাইরাস, দাবী চীনা বিজ্ঞানীর

উহানের ল্যাবেই তৈরি করা হয়েছে করোনা ভাইরাস, এমনটাই দাবী করেছেন চীনা ভাইরোলোজিস্ট লি মেং ইয়ান। তিনি জানান উহানের ল্যাবের সম্পূর্ণ নিয়ন্ত্রণ থাকে চীনা সরকারের হাতে।  তার দাবীর স্বপক্ষে বৈজ্ঞানিক প্রমাণ আছে বলেও জানিয়েছেন মেং।

চীনা সরকারের করোনা ভাইরাস নিয়ন্ত্রণ সংক্রান্ত তথ্য ফাঁস করেছিলেন ‘হুইসেলব্লোয়ার’ মেং। চীনের মূল ভূখণ্ড থেকে সার্সের মতো রোগ ছড়ানোর যে খবর ছড়িয়েছিলো, গত ডিসেম্বরে তার উপর নজরদারি চালানোর দায়িত্ব পেয়েছিলেন তিনি। হংকংয়ে কর্মরত ওই ভাইরোলজিস্ট দাবি করেন, সেই নজরদারির সময় একটি গোপন অভিযানের হদিশ পান তিনি। একইসঙ্গে তিনি জানান, জনসমক্ষে ঘোষণা করার আগে থেকেই করোনার সংক্রমণের বিষয়ে জানত চীনা সরকার।

তাই নিরাপত্তা সংকটে ভুগে আমেরিকায় চলে যেতে বাধ্য হন মেং। গত ১১ সেপ্টেম্বর মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র্বের  একটি গোপন জায়গা থেকে এক ব্রিটিশ গণমাধ্যমের সাক্ষাৎকারে ‘হংকং স্কুল অফ পাবলিক হেলথ’-এর ‘ভাইরোলজি অ্যান্ড ইমিউনোলজি’ বিশেষজ্ঞ জানান, গত ডিসেম্বর থেকে জানুয়ারির গোড়ার মধ্যে চীনে ‘নতুন নিউমোনিয়া’র উপর দুটি গবেষণা চালিয়েছিলেন তিনি। সেই গবেষণার ফল তিনি নিজের উর্ধ্বতন কর্মকর্তাকে দিয়েছিলেন যিনি একাধারে বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার (হু) পরামর্শদাতাও।

মেং আশা করেছিলেন, ‘চীনা সরকার এবং হু’র তরফে ঠিক কাজ করা হবে।’ সেই কাজ করা তো হয়নি, উল্টো তাকে ‘চুপ থাকতে বলা হয়, নাহলে গুম করে দেওয়া হবে বলা হয়’ বলে অভিযোগ মেংয়ের। যদিও চীনে তা খুবই স্বাভাবিক বলে দাবি করেন এই ভাইরোলজিস্ট।

তিনি বলেন, ‘কেউ জবাব দেননি। মানুষ সরকারকে ভয় পায় এবং সুরক্ষিত হওয়ার জন্য আরও সুযোগ-সুবিধাসহ সরকার এবং হু’র সঙ্গে মিলিত হওয়ার অপেক্ষা করছেন তারা। কিন্তু এটা অত্যন্ত জরুরি ছিল।’

ভাইরোলজিস্টের দাবী, চীনা নববর্ষের সময় চীন থেকে সারা বিশ্বেই বিভিন্ন জিনিসপত্র পাঠানো হয়। তাই সে বিষয়ে মুখ খোলার সিদ্ধান্ত নেন তিনি। কারণ ‘এটা (করোনা ভাইরাস) অত্যন্ত সংক্রামক ও ভয়ানক ভাইরাস। আমার বক্তব্য, এটা মানুষ ও বিশ্বব্যাপী স্বাস্থ্যের জন্য।’

তবে সত্যি সামনে আনার মাসুলও তাকে দিতে হচ্ছে বলে জানিয়েছেন মেং। তিনি জানান, পুরো বিষয়টি বেশ ভয়ের। কারণ তাকে অনবরত হুমকি দেওয়া হয়েছে। কিন্তু ‘আমি জানতাম, যদি আমি বিশ্বকে সত্যিটা না বলি, তাহলে আমাকে অনুুতপ্ত থাকতে হতো।’



Related posts