সাকিবের ফেরার অপেক্ষায় বাংলাদেশ 

আর মাত্র গুণে গুণে কয়েকঘণ্টা। তারপরই কেটে যাবে নিষেধাজ্ঞা, আবারও ক্রিকেটে ফিরবেন সাকিব আল হাসান। বাঁহাতি অলরাউন্ডারকে বরণ করে নিতে…

আবারও বিয়ের বাঁধনে জড়ালেন অর্ণব 

আবারও বিয়ে করেছেন দুই বাংলার জনপ্রিয় সংগীতশিল্পী শায়ান চৌধুরী অর্ণব। ২৮ অক্টোবর নতুন করে পরিণয়ে জড়িয়েছেন পশ্চিমবঙ্গের সঙ্গীতশিল্পী সুনিধি নায়েকের…

বাংলাদেশে আসবেন এরদোয়ান 

মুজিববর্ষ উদযাপনে অংশ নিতে আগামী বছরের মার্চে তুরস্কের প্রেসিডেন্ট রিসেপ তাইয়েপ এরদোয়ান বাংলাদেশ সফর করতে পারেন বলে জানিয়েছেন পররাষ্ট্রমন্ত্রী এ…

সব সংবাদ-তথ্য-ভিডিও

চলমান

এইচএসসি ও সমমানের পরীক্ষা কি পিছিয়ে যাচ্ছে? 

এইচএসসি ও সমমানের পরীক্ষা কি পিছিয়ে যাচ্ছে?

এবছর এইচএসসি ও সমমানের পরীক্ষা আগামী ১ এপ্রিল থেকে অনুষ্ঠিত হবার কথা থাকলেও তা ঠিকসময়ে অনুষ্ঠিত হওয়া নিয়ে শঙ্কা দেখা দিয়েছে। করোনা ভাইরাস সংক্রমণ পরিস্থিতির কারণে এ পরীক্ষা পিছিয়ে যাচ্ছে বলে বোর্ড সূত্রে সংবাদ প্রকাশ করেছে একটি জাতীয় দৈনিক।

পত্রিকাটির খবর অনুসারে, ইতিমধ্যে এইচএসসি পরীক্ষার খাতা, প্রশ্নপত্র সব কিছু সংশ্লিষ্ট জেলায় পৌঁছে দেওয়া হয়েছে, কিন্তু এর পরও ১ এপ্রিল পরীক্ষা শুরু করার বাস্তব অবস্থা নেই বলে বিভিন্ন শিক্ষা বোর্ড থেকে ইঙ্গিত দেয়া হয়েছে। কিছু কিছু জেলা ও উপজেলায় পরিবহন বন্ধ করা হয়েছেসহ নানা সীমাবদ্ধতায় পরীক্ষা পিছিয়ে যেতে পারে। তবে এ বিষয়ে সিদ্ধান্ত জানাতে একটু সময় নিতে চায় শিক্ষা মন্ত্রণালয়।

খুব শীঘ্রই এ বিষয়ে শিক্ষা মন্ত্রীর সভাপতিত্বে বৈঠক হবার কথা রয়েছে। বৈঠকে পরিস্থিতি পর্যালোচনা করে এবং শিক্ষার্থী-অভিভাবকদের নিরাপত্তার কথা ভেবে এইচএসসি পরীক্ষার ব্যাপারে সিদ্ধান্ত জানিয়ে দেওয়া হবে বলে জানা গেছে।

আগামী ১ এপ্রিল বাংলা (অবশ্যিক) প্রথম পত্র দিয়ে এইচএসসি পরীক্ষা শুরু হওয়ার কথা রয়েছে। ৪ মে পর্যন্ত তত্ত্বীয় পরীক্ষা হওয়ার কথা। এরপর ৫ মে ব্যাবহারিক পরীক্ষা শুরু হয়ে ১৩ মে শেষ হওয়ার কথা রয়েছে। এবারের এইচএসসি পরীক্ষায় অংশ নেওয়ার কথা রয়েছে ১১ লাখ পরীক্ষার্থীর। দুই হাজারের বেশি কেন্দ্রে পরীক্ষাসংক্রান্ত কাজে লক্ষাধিক শিক্ষক-কর্মচারী জড়িত থাকেন। এক কলেজের শিক্ষার্থীদের অন্য কেন্দ্রে গিয়ে পরীক্ষায় অংশ নিতে হয়। সাধারণত পরীক্ষার্থীদের দূরের কলেজে যেতে হয়। এ ছাড়া পরীক্ষার সময় সাধারণত অভিভাবকরাও পরীক্ষাকেন্দ্রের বাইরে অপেক্ষা করেন। এ সব কিছু বিবেচনায় নিয়েই পরীক্ষার ব্যাপারে সিদ্ধান্ত নেওয়া হবে।



Related posts