২ ডোজ টিকা নিয়েও তৃতীয়বার করোনায় আক্রান্ত চিকিৎসক 

একবার, দুইবার নয়, তৃতীয়বার করোনায় আক্রান্ত হয়েছেন ভারতের এক চিকিৎসক। মুম্বাইয়ের ২৬ বছরের এই চিকিৎসক গত ১৩ মাসের মধ্যে তৃতীয়বার…

লকডাউন চলবে 

মহামারী করোনাভাইরাস নিয়ন্ত্রণে চলমান বিধিনিষেধ (লকডাউন) আগামী ৫ আগস্ট পর্যন্তই বলবৎ থাকবে এবং আগামী ৭ আগস্ট থেকে ইউনিয়ন পর্যায়ে করোনার…

দায়মুক্তি পাচ্ছেন না অবসরপ্রাপ্ত সরকারি কর্মচারীরা 

সরকারি চাকরি আইনে ২০১৮ সালে সরকারি কর্মচারীদের নানাবিধ সুবিধা নিশ্চিত করেছে। তবে এর তিন বছর কাটতে না কাটতেই জনপ্রশাসন মন্ত্রণালয়…

সব সংবাদ-তথ্য-ভিডিও

বিশ্ব

চীনে বিমান কর্মীদের ডায়াপার পরা বাধ্যতামূলক! 

চীনে বিমান কর্মীদের ডায়াপার পরা বাধ্যতামূলক!

করোনা সংক্রমণ রোধে বিমান কর্মীদের জন্য নতুন নির্দেশনা দিয়েছে চীন। এরমধ্যে অন্যতম হলো তাদের ডায়াপার পরতে হবে। এছাড়াও আরো বেশকিছু নিদের্শনা দিয়েছে কর্তৃপক্ষ।

বিমান মন্ত্রণালয়ের নির্দেশনায় বলা হয়েছে, যে সব দেশে করোনা সংক্রমণের ঝুঁকি অনেক বেশি সেখানে যাওয়া কিংবা আসার সময় বিমানকর্মীদের ডায়াপার পরে থাকতে হবে। ৩৮ পাতার ওই নির্দেশিকায় পরিষ্কার বলে দেওয়া হয়েছে কী কী পরে থাকতে হবে বিমানকর্মীদের। যার অন্যতম ডায়াপার। সেই সঙ্গে সংক্রমণ এড়াতে শৌচাগারও ব্যবহার না করার নির্দেশ দেওয়া হয়েছে তাদের।

বিমানে আর কী কী পরে থাকতে হবে কর্মীদের? নির্দেশিকায় উল্লেখ করা হয়েছে মেডিক্যাল প্রোটেক্টিভ মাস্ক, গগলসের কথা। এছাড়া ‘ডিজপোসেবল’ অর্থাৎ একবার ব্যবহারের পরে ফেলে দিতে হবে এমন মেডিক্যাল রবার গ্লাভস, ক্যাপ, পোশাক ও জুতোর কভারের কথাও বলা হয়েছে।

তবে ডায়াপারের নির্দেশ কেবলই বিমানের ক্রু সদস্যদের জন্য। বিমান চালকদের তা পরার দরকার নেই বলে জানিয়ে দেওয়া হয়েছে। তবে গগলস ও মাস্ক তাদেরও পরতে হবে।

আরো বলা হয়েছে, বিমানের ভিতরে থাকবে চারটি জোন- ক্লিন এরিয়া, বাফার জোন, প্যাসেঞ্জার সিটিং এরিয়া ও কোয়ারেন্টাইন এরিয়া। এছাড়াও শেষ তিনটি সারিকে ‘এমার্জেন্সি কোয়ারেন্টাইন এরিয়া’ হিসেবে রাখতে বলা হয়েছে নির্দেশিকায়। বিমানে সংক্রমণ এড়াতে এই ধরনের সাবধানতা অবলম্বন করতে চাইছে বেজিং।

গত বছরের ডিসেম্বরে ইউহান থেকে করোনার সংক্রমণ শুরু হওয়ার পর থেকে তা ছড়িয়ে পড়ে গোটা বিশ্বে। চিনের বিমান পরিষেবা সেই সময় ক্ষতিগ্রস্ত হলেও তা এখন কিছুটা স্বাভাবিক। বিশেষ করে অভ্যন্তরীণ বিমান চলাচলের ক্ষেত্রে। যদিও বহু দেশেই আন্তর্জাতিক বিমান চলাচল বন্ধ রয়েছে চীনের। তবে কয়েকটি দেশের সঙ্গে ধীরে ধীরে বিমান যোগাযোগ শুরু হয়েছে বেজিংয়ের।



Related posts