শিশুদের স্মার্টফোন আসক্তি
শিশুর স্মার্টফোনে আসক্তি কমবে যেভাবে 

তথ্যপ্রযুক্তির এ সময়ে স্মার্টফোন নিত্যপ্রয়োজনীয় অনুষঙ্গ হয়ে দাঁড়িয়েছে। করোনা মহামারির লকডাউনের সময়ে এর ব্যবহার বেড়েছে বহুগুণ। প্রায়ই দেখা যায়, অভিভাবকরা…

মেসি-দিবালা-লাওতারোদের ছাড়াই ব্রাজিলের মুখোমুখি হবে আর্জেন্টিনা 

মেসি-দিবালা-লাওতারোদের ছাড়াই ব্রাজিল-উরুগুয়ের বিপক্ষে মাঠে নামার জন্য রাজি হয়ে গিয়েছে আর্জেন্টিনা। ব্রাজিল ছাড়াও আরেক লাতিন পরাশক্তি উরুগুয়ের বিপক্ষে বিশ্বকাপ বাছাইপর্বের…

ইন্টারনেটে নিপীড়ন
ইন্টারনেটে নিপীড়ন বা নির্যাতনের শিকার ৩০ শতাংশ শিশু 

৩০ শতাংশ শিশু করোনাকালে কোনও না কোনোভাবে ইন্টারনেটে নিপীড়ন বা নির্যাতনের শিকার হয়েছে। ১২ শতাংশ শিশু এ বিষয়ে কোনও তথ্য…

সব সংবাদ-তথ্য-ভিডিও

টেক

ফ্ল্যাশের সঙ্গে দীর্ঘদিনের সম্পর্কের ইতি টানলো অ্যাডোবি 

ফ্ল্যাশের সঙ্গে দীর্ঘদিনের সম্পর্কের ইতি টানলো অ্যাডোবি

আস্তে আস্তে ব্রাউজারগুলোর সঙ্গে সম্পর্ক শেষ হয়ে আসছে বিখ্যাত সফটওয়্যার ফ্ল্যাশ প্লেয়ারের। তারই ধারাবাহিকতায় আনুষ্ঠানিকভাবে ফ্ল্যাশের সঙ্গে দীর্ঘদিনেত সমর্থনের ইতি টেনেছে অ্যাডোবি। ২০২০ সালের ৩১ ডিসেম্বরই সফটওয়্যার সমর্থন বন্ধ করেছে প্রতিষ্ঠানটি।

প্রযুক্তি সাইট ভার্জের প্রতিবেদন বলছে, সমর্থন বন্ধ করলেও ১২ জানুয়ারি পর্যন্ত ফ্ল্যাশ কনটেন্ট আটকাবে না অ্যাডোবি। তবে, সফটওয়্যার সমর্থন বন্ধ হওয়ার পরের দিন থেকেই ফ্ল্যাশ কনটেন্ট আটকে দিচ্ছে মূল ব্রাউজারগুলো। আর বেশিরভাগ উইন্ডোজ সংস্করণেই এই কনটেন্ট বন্ধ করবে মাইক্রোসফট।

ওয়েব ইতিহাসে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রেখেছে ফ্ল্যাশ। এ কারণেই সম্ভবত সফটওয়্যারটির বিদায়ী ঘন্টা বেজেছে এতো দীর্ঘ সময় ধরে। গত দশকের শুরু থেকেই ফ্ল্যাশ সফটওয়্যারকে বাতিল করার পথে হাঁটছে ব্রাউজারগুলো।

কার্যত ফ্ল্যাশের প্রথম বিদায় ঘণ্টা বাজান ২০১০ সালের এপ্রিলে সে সময়ের অ্যাপল সিইও স্টিভ জবস। অ্যাডোবি ফ্ল্যাশ কেন আইওএস প্ল্যাটফর্মে চালানো সম্ভব নয় সে বিষয়ে সহজ ব্যাখ্যা দেন তিনি এবং বলেন ভিডিও কনটেন্টের বেলায় ফ্ল্যাশের চেয়েও ভালো সমাধান আসছে এইচটিএমএল ৫-এ। ওই ঘটনার পর থেকে অ্যাডোবি ফ্ল্যাশ বিষয়ে বড় কোনো আশা জাগানিয়া ঘোষণা আসেনি নির্মাতা প্রতিষ্ঠানটির কাছ থেকে।

অ্যাডোবি নিজেও ২০১৫ সাল থেকে ডেভেলপারদেরকে এইচটিএমএল৫ ব্যবহার শুরু করতে বলেছে। ফ্ল্যাশের ইতি টানার বিষয়টি পাকাপোক্ত হয় যখন, ২০১৭ সালে অ্যাডোবি এতে সমর্থন বন্ধ করা হতে পারে বলে ঘোষণা দেয়।

অ্যাডোবি ফ্ল্যাশ সফটওয়্যারকে বিদায় জানালেও ওয়েবের অনেক ঐতিহাসিক নিদর্শনে এর ছাপ থেকে যাবে।

ফ্ল্যাশ গেইম এবং অ্যানিমেশনগুলো মজুদ থাকবে ইন্টারনেট আর্কাইভে। এর মধ্যে ‘পিনাট বাটার জেলি টাইম’-এর মতো জনপ্রিয় গেইমও থাকবে বলে প্রতিবেদনে উল্লেখ করেছে ভার্জ।



Related posts