লেন্স গলে চোখই হারাতে বসেছিলেন নায়িকা 

দিন দিন বেড়েই চলছে কন্টাক্ট লেন্সের ব্যবহার। বিশেষ করে তরুণীরা খুবই আগ্রহী চোখ আকর্ষণীয় করে তোলার এই অনুষঙ্গে। অনেক নায়িকা-মডেলও…

ফেশিয়াল রিকগনিশনে ৬৫ কোটি ডলার খসছে ফেসবুকের 

ফেসবুকের ফেশিয়াল রিকগনিশন বিষয়ে ক্লাস অ্যাকশন মামলা ৬৫ কোটি মার্কিন ডলারে মীমাংসার চূড়ান্ত অনুমোদন দিয়েছেন মার্কিন ফেডারেল বিচারক। দুই পক্ষের…

নতুন দল নয়, নির্বাচনী লড়াইয়ের ঘোষণা ট্রাম্পের 

২০২৪ সালের প্রেসিডেন্ট নির্বাচনে লড়াইয়ের ইঙ্গিত দিয়েছেন সাবেক মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প। তবে নতুন রাজনৈতিক দল খোলার পরিকল্পনা নেই বলে…

সব সংবাদ-তথ্য-ভিডিও

বিশ্ব

বাড়ি থাকার বিরক্তি কাটাতে নিজেকে থানায় সোপর্দ! 

বাড়ি থাকার বিরক্তি কাটাতে নিজেকে থানায় সোপর্দ!

করোনা মহামারিতে মানুষের ঘরে থাকা বেড়েছে। অনেকেরই অফিসের কাজ সারতে হচ্ছে বাসায়। আবার অনলাইনে কেনাকাটও বেড়েছে। তাই বাজারেও যেতে হয় না খুব একটা। পুরো বিশ্বেই প্রায় একই চিত্র। তাই এই অবস্থায় একঘেয়েমি ধরেনি এমন লোক খুঁজে পাওয়া মুশকিল। এ পরিস্থিতি সবাই ভাবছে একটু সুযোগ পেলেই ছুটবে কোনো দেশে বা দেশরে এক প্রান্ত থেকে আরেক প্রান্তে।

কিন্তু কিন্তু এই একঘেয়ে কাটানোর জন্য সাসেক্সের এক ব্যক্তি যা করলেন তা নিঃসন্দেহে নজিরবিহীন। ভাবতে পারেন, চুপিসারে হয়তো কোনও লং ড্রাইভে বেরিয়ে পড়েছিলেন তিনি। কিংবা মজার কোনও কাণ্ড ঘটিয়েছেন। কিন্তু না, আপনার কল্পনারও অতীত এই ঘটনা। বাড়িতে একঘেয়ে জীবন কাটিয়ে বিরক্ত সেই ব্যক্তি সোজা ফোন করে দেন থানায়। বলেন, বাড়ি বড় একঘেয়ে। তাকে যেন গ্রেপ্তার করা হয়! শুনতে অবাক লাগছে, কিন্তু এটাই সত্যি।

ওই ব্যক্তির পরিচয় এখন পর্যন্ত জানা যায়নি। গত বুধবার তিনি বার্জেস হিল থানায় ফোন করে বলেন, বাড়িতে একঘেয়ে হওয়ার চেয়ে ভাল জেলে কাটাবেন। তার শুধু প্রয়োজন একটু শান্তি। সংসারের চিৎকার-চেঁচামেচি থেকে দূরে যাওয়ার জন্য এই পথই বেছে নিতে চান তিনি।

মিড সাসেক্স নেইবারহুডের পুলিশ ইন্সপেক্টর জানান, বুধবার বিকেল ৫টার দিকে থানায় এসে নিজেই ধরা দেন ওই ব্যক্তি। তাকে বোঝানো হয়, পরিবারের মানুষদের সঙ্গে থাকতে ইচ্ছা না করলে তিনি যেন নিজের সঙ্গে খানিকটা সময় কাটান। এতে একঘেয়েমি কমতে পারে।

গত অক্টোবরে পরিচালিত সমীক্ষা বলছে, গৃহবন্দি থাকার কারণে প্রায় পাঁচ শতাংশ মানুষের স্বভাব ও আচরণে বিপুল বদল এসেছে। খুব তাড়াতাড়ি মেজাজ হারান তারা। ছোটখাটো কথায় বিরক্ত হন। তার মধ্যেই যে এই ব্যক্তিও রয়েছেন, তা বলাই বাহুল্য। আর ঠিক এই কারণেই সকলের চাওয়া, আর যেন কোনও মহামারির সাক্ষী না হতে হয় বিশ্ববাসীকে।



Related posts