ইংরেজি শেখাতে বিনামূল্যে কোর্স নেবে মার্কিন দূতাবাস 

যাদের মাতৃভাষা ইংরেজি নয়, এমন মানুষের জন্য ইংরেজি ভাষার দক্ষতা বৃদ্ধি ও গণমাধ্যম সম্পর্কে জ্ঞান বৃদ্ধির জন্য বিনা মূল্যে অনলাইন…

বাংলাদেশ থেকে ব্যান্ডউইথ নেবে সৌদি আরব-ভারত, নেপাল 

বাংলাদেশ থেকে ব্যান্ডউইথ কেনার ব্যাপারে প্রকাশ করেছে সৌদি আরব, ভারত, নেপাল ও ভুটান। আনুষ্ঠানিকভাবে ভুটান ও ভারতের ত্রিপুরা রাজ্য প্রস্তাব…

প্রথম দেশ হিসেবে কৃত্রিম মাংস ব্যবহারের অনুমতি দিলো সিঙ্গাপুর 

প্রথম দেশ হিসেবে কৃত্রিম মাংস ব্যবহারের অনুমতি দিয়েছে সিঙ্গাপুর। গবেষণাগারে কৃত্রিম উপায়ে তৈরি মাংস খাওয়ার অনুমতি দেওয়ার ঘটনা বিশ্বে এটাই…

সব সংবাদ-তথ্য-ভিডিও

ওপার বাংলা

শেষকৃত্যের আগের দিন ঘরে ফিরে চমকে দিলেন করোনায় ‘মৃত’ ব্যক্তি 

শেষকৃত্যের আগের দিন ঘরে ফিরে চমকে দিলেন করোনায় ‘মৃত’ ব্যক্তি

শোকে দুঃখে কাতর পরিজনেরা। তবু সামাজিক রীতির কথা ভেবে শেষকৃত্যের আয়োজন করা হয়েছিল। করোনা কালে বিশেষ আত্মীয়স্বজন আসার সম্ভাবনা নেই। তাই বাড়ির ছাদে ছোট করে বাঁধা হয় প্যান্ডেল। ছেলে সবে প্রস্তুত হচ্ছেন স্থানীয় দোকান থেকে বাবার বাঁধাতে দেওয়া ছবি আনতে যাওয়ার। এমন সময় অজানা নম্বর থেকে এল ফোন। তা কানে দেওয়া মাত্রই যেন জ্ঞান হারানোর জোগাড় ছেলের। হতভম্ব হয়ে বিছানায় কিছুক্ষণ বসেও পড়েন তিনি।

ঘরে যখন এরকম পরিস্থিতি। তখন বাড়ির দরজার সামনে ঘটে গেল আরেক বিস্ময়। আচমকাই এসে দাঁড়াল একটি অ্যাম্বুল্যান্স। কে রয়েছেন অ্যাম্বুল্যান্সের ভিতরে? তা তখনও কারও কিছু জানা নেই। তারপরই দেখা গেল দরজা খুলে নেমে আসছেন শিবনাথ বন্দ্যোপাধ্যায়। খড়দহের বন্দ্যোপাধ্যায় পরিবারের তিনিই কর্তা। তারই শেষকৃত্যের আয়োজন করে ফেলেছিলেন ছেলে। কিন্তু আচমকা ‘মৃত’ মানুষ ফিরে আসায় অবাক তার শিবনাথবাবুর পরিজন ও প্রতিবেশীরা।

আসলে ব্যাপারটা কী ছিলো? গত ১১ নভেম্বর করোনা আক্রান্ত শিবনাথ বন্দ্যোপাধ্যায়কে ভর্তি করা হয় হাসপাতালে। তার ঠিক দু’দিন পর অর্থাৎ ১৩ নভেম্বর হাসপাতাল থেকে রোগীর পরিবারের কাছে একটি ফোন আসে। তাতেই জানানো হয় শিবনাথ করোনায় মারা গেছেন। দূর থেকে নাকি মৃতদেহও দেখানো হয় শিবনাথের পরিজনদের। তারপরই শেষকৃত্যের আয়োজন করেন তার ছেলে।
শনিবারই ছিল শেষকৃত্য। পরে জানা গেছে, আসলে যিনি মারা গিয়েছেন তার নাম মোহিনীমোহন গোস্বামী। তিনি বিরাটির বাসিন্দা। তার সঙ্গে শিবনাথের বিষয়টি গুলিয়ে ফেলা হয়েছে। শিবনাথ জানান, শুক্রবার সন্ধ্যায় তাকে অ্যাম্বুল্যান্সে করে বিরাটির দিকেই নিয়ে যাওয়া হচ্ছিল। তবে তিনি খড়দহের বাসিন্দা বলে জানান। তারপর সমস্ত ভুলভ্রান্তি সামনে আসে। এই ঘটনায় তিন সদস্যের কমিটি গঠন করে তদন্ত শুরু হয়েছে। উত্তর ২৪ পরগনা জেলা প্রশাসনের কাছ থেকে রিপোর্ট চেয়ে পাঠিয়েছে স্বাস্থ্যদপ্তর।



Related posts